বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ০১:৩১ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জে সার পাচারের ঘটনায় ডিলারের নামে মামলা মুমূর্ষুদের বাঁচাতে প্রাণ, আসুন করি রক্তদান” নড়াইলে বাঐসোনা ইউনিয়নে দু গ্রুপের সংঘর্ষ-গুলিবিদ্ধ ২ আহত ৪ জন ৮টি বাড়িঘর ভাংচুর। দেওয়ানগঞ্জে যমুনার পার থেকে ৯০ বোতল ভারতীয় মদ উদ্ধার,গ্রেফতার ১ আশাশুনিতে সমৃদ্ধি ও প্রবীণ কর্মসূচির ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত কলাপাড়ায় ওসির অপসারনের দাবিতে ঝাড়ু মিছিল ও বিক্ষোভ সমাবেশ কিশোরগঞ্জে জমিসহ ৫০টি ঘর পাচ্ছেন গৃহ ও ভূমিহীনরা। ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ঝালকাঠি জেলা কাঠালিয়া উপজেলায় বিজয়ী হলেন যাহারা নড়াইল জেলা পুলিশ লাইনস্ এর নবনির্মিত গান ক্লিয়ারিং পয়েন্টের নামফলক উন্মোচন হাটে নয়,ক্রেতার ভিড় খামারে । *ছোট ও মাঝারি গরুর চাহিদা বেশি কাঙ্খিত দামে মিলছে না পশু*

হাটে নয়,ক্রেতার ভিড় খামারে । *ছোট ও মাঝারি গরুর চাহিদা বেশি কাঙ্খিত দামে মিলছে না পশু*

  • আপডেট সময় : রবিবার, ৯ জুন, ২০২৪
  • ১২ বার পঠিত

০৮/০৬/২০২৪

বিজয় কর রতন, কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধিঃ- একেত গরম সেই সাথে কোরবানির পশুর হাটে অনেক ভিড়। সঙ্গে রয়েেেছ মধ্যস্বত্বভোগীদের দৌরাত্ম্য। এসব ঝামেলা এ কিশোরগঞ্জে হাওড়ে কোরবানির পশু কিনতে সরাসরি খামারে গৃহস্থের বাড়িতে ভিড় করছেন ক্রেতারা। পশু ক্রেতারা বলছেন, হাটের ভিড় এড়িয়ে সুস্থ ও সবল পশু দেখেশুনে কিনতে তাঁরা সরাসরি খামারে এসেছেন। খামারিরা বলছেন, গবাদিপশুর খাদ্যের দাম বৃদ্ধি পাওয়ার ব্যয় বেশি হয়েছে। সে তুলনায় ন্যায্য দাম পাওয়া নিয়ে সংশয়ে রয়েছেন তাঁরা। বাংলাদেশ ডেইরী ফার্মারস এসোসিয়েশন কিশোরগঞ্জ জেলার শাখার সভাপতি আজমল খান বলেন, চলতি বছর দেশীয় গরু দ্বারাই কোরবানি চাহিদা পূরণ হবে এবং ২৭ হাজার ৭৬৩ টি পশু উদ্বৃত্ত থাকবে। মিঠামইন উপজেলার মালিউন্দ গ্রামের মা এগ্রো ফার্মের মালিক দুলাল মিয়া জানান, এ বছর তার ফার্মে ২০-১৫ টি গরু রয়েছে যা কোরবানির জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে।গরু গুলি তিনি দেশীয় পদ্ধতিতে লালন পালন করেছেন।ভালো দাম পাওয়ার আশা করছেন তিনি।এলাকার স্থানীয় যুবকেরা তার ফার্ম দেখে উৎসাহিত হচ্ছে বলেও জানান তিনি। খামারিরা বলছেন,বেশির ভাগ খামারি নিজেদের গচ্ছিত পুঁজি দিয়ে খামারে কোরবানির জন্য পশু পালন করেছেন। আবার অনেক খামারি এনজিও বা ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়েও পশু পালন করেছেন। পশুখাদ্যের দাম বেড়ে যাওয়ার পশু লালনপালনে ব্যয় ও বেড়ে গেছে। এখন সে অনুযায়ী দাম না পেলে খামারিদের পথে বসতে হবে। মিঠামইন উপজেলার খামারি শহিদ মিয়া জানান, তাঁর খামারে ২২টি গরু রয়েছে। এর মধ্যে ১২টি এবার কোরবানির হাটে তুলবেন। ভাল দাম পাবেন বলে আশা করছেন তিনি। রে গরু কিনতে আসা আবুল হোসেন নামের এক ক্রেতা বলেন, “পশুর হাটগুলোতে এক লাখ টাকায় পাঁচ হাজার টাকা হাসিল দিতে হয় ক্রেতাকে। খামার থেকে গরু কিনলে সেই টাকা দিতে হচ্ছে না। তা ছাড়া সুস্থ ও সবল নিশ্চিত হয়েই গরু কিনছেন তারা। জেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃসুভাষ চন্দ্র পন্ডিত জানান, কিশোরগঞ্জ জেলায় এ বছর ২৩ হাজার খামারির মাধ্যমে ১ লক্ষ ৭১ হাজার ৯৩৩ টি পশু কোরবানির জন্য চাহিদা রয়েছে।সর্বমোট পশু প্রস্তুত আছে ১ লক্ষ ৯৯ হাজার ৬৯৬ টি। এর মধ্যে ৬৫১০৫ টি ষাড়,৩১৭০ টি বলদ, ১৬ হাজার ৬০১ টি গাভী, ১ হাজার ৪২৯ টি মহিষ,১ লক্ষ ৮৪ হাজার ১৬৮ টি ছাগল,৪ হাজার ৯২৩ টি ভেড়া কোরবানির জন্য প্রস্তুুত করা হয়েছে। রুগ্ন পশু যাতে বিক্রি করতে না পারে তার জন্য কোরবানির হাটে ৪৭টি ভেটেনারি মেডিকেল টিম গঠন করা হয়েছে। চামড়া ছাড়ানো ও সংরক্ষণের জন্য ২৫০ জন কসাই ও ২৭০ জন মৌসুমী কসাইদের প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছে।

বার্তা প্রেরক
বিজয় কর রতন
মিঠামইন কিশোরগঞ্জ
মোবাইল:০১৭২৪৩৬৭৪৪

Facebook Comments Box
এই জাতীয় আরও খবর