বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ০২:০৩ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জে সার পাচারের ঘটনায় ডিলারের নামে মামলা মুমূর্ষুদের বাঁচাতে প্রাণ, আসুন করি রক্তদান” নড়াইলে বাঐসোনা ইউনিয়নে দু গ্রুপের সংঘর্ষ-গুলিবিদ্ধ ২ আহত ৪ জন ৮টি বাড়িঘর ভাংচুর। দেওয়ানগঞ্জে যমুনার পার থেকে ৯০ বোতল ভারতীয় মদ উদ্ধার,গ্রেফতার ১ আশাশুনিতে সমৃদ্ধি ও প্রবীণ কর্মসূচির ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত কলাপাড়ায় ওসির অপসারনের দাবিতে ঝাড়ু মিছিল ও বিক্ষোভ সমাবেশ কিশোরগঞ্জে জমিসহ ৫০টি ঘর পাচ্ছেন গৃহ ও ভূমিহীনরা। ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ঝালকাঠি জেলা কাঠালিয়া উপজেলায় বিজয়ী হলেন যাহারা নড়াইল জেলা পুলিশ লাইনস্ এর নবনির্মিত গান ক্লিয়ারিং পয়েন্টের নামফলক উন্মোচন হাটে নয়,ক্রেতার ভিড় খামারে । *ছোট ও মাঝারি গরুর চাহিদা বেশি কাঙ্খিত দামে মিলছে না পশু*

সাতক্ষীরার আকর্ষণ সড়কপথে সুন্দরবন

  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ২১ নভেম্বর, ২০২৩
  • ১২৯ বার পঠিত

সাতক্ষীরার আকর্ষণ সড়কপথে সুন্দরব

ডেক্স রিপোর্ট :

সাতক্ষীরা জেলার আদি নাম সাতঘরিয়া। চিরস্থায়ী বন্দোবস্তের সময় বিষ্ণুরাম চক্রবর্তী, নদীয়ার রাজা কৃষ্ণচন্দ্রের কর্মচারী হিসেবে ১৭৭২ সালে নিলামে পরগনা কিনে গ্রাম স্থাপন করেন। তাঁর পুত্র প্রাণনাথ চক্রবর্তী সাতঘর কুলীন ব্রাহ্মণ এনে এই পরগণায় প্রতিষ্ঠিত করেন এবং নাম হয় সাতঘরিয়া। ১৭৮১ সালে বর্তমান যশোর, ফরিদপুর, সাতক্ষীরা, খুলনার বৃহত্তর অংশ একই জেলা হিসেবে আসে । এক অনির্বচনীয় নান্দনিক অনুভবের প্রাচীন জনপদ সাতক্ষীরা একদা রাজা প্রতাপাদিত্যের যশোহর রাজ্যের অন্তর্গত ছিল। বারোভূঁইয়াদের অন্যতম রাজা প্রতাপাদিত্যের রাজধানী এ জেলার কালিগঞ্জ ও শ্যামনগর এলাকায়। বাংলাদেশের মানচিত্রে দক্ষিণ-পশ্চিম কোণে সাতক্ষীরা জেলার অবস্থান।

সুন্দরবন, সাতক্ষীরা অঞ্চলে প্রতাপাদিত্যের পর ব্যাপক প্রশাসনিক উন্নতি হয় হেংকেলের আন্তরিকতায়। ১৭৮১ খ্রিস্টাব্দে টিলম্যান হেংকেল প্রথম ম্যাজিস্ট্রেট ও জজ নিযুক্ত হন যশোর অঞ্চলে। ঐ বছরেই যশোরে প্রথম আদালত স্থাপিত হয়। ১৭৮৬ খ্রিস্টাব্দে তিনি খুঁটি দিয়ে সীমানা চিহ্নিত করেন।১৭৮৬ খ্রিস্টাব্দে যশোর পৃথক জেলার মর্যাদা পায়। এরপর থেকে যশোর অঞ্চল প্রশাসনিকভাবে বিকেন্দ্রীকরণ হতে থাকে। সাতক্ষীরা অঞ্চল মহকুমার মর্যাদা পায় ১৮৫২ খ্রিস্টাব্দে। মহকুমার মর্যাদা পাওয়ার পর প্রথমে সাতক্ষীরাকে যুক্ত করা হয় নদীয়া জেলার সাথে। ১৮৬১ খ্রিস্টাব্দে নদীয়া থেকে সাতক্ষীরাকে বিভক্ত করা হয় চব্বিশ পরগণার সাথে। খুলনা জেলার মর্যাদা পায় ১৮৮২ খ্রিস্টাব্দে। জেলার মর্যাদা পাওয়ার পর লর্ড রিপনের (১৮৮০-৮৪) আন্তরিক প্রচেষ্টায় সাতক্ষীরা মহকুমাকে খুলনা জেলার একটা মহকুমায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়।

১৯৮৪ খ্রিস্টাব্দে বাংলাদেশের প্রশাসনিক বিকেন্দ্রীকরণের আওতায় সাতক্ষীরা মহকুমা বাংলাদেশের ৬৪ জেলার একটি জেলা হিসেবে মর্যাদা লাভ করে। বর্তমানে এ জেলায় ৭টি উপজেলা, ৮টি থানা, ৭৮টি ইউনিয়ন, ৯৬০টি মৌজা, ১৪২১টি গ্রাম ও ৩টি পৌরসভা রয়েছে।
সাতক্ষীরা জেলায় ২ টি পৌরসভা , ৭টি উপজেলা, ৮টি থানা , ৭৮ টি ইউনিয়ন পরিষদ ও ১৪২৩টি গ্রাম রয়েছে এবং জাতীয় সংসদের ৪টি সংসীয় আসন রয়েছে।

★ জেলা প্রশাসক : মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির।

★ সংসীয় আসন সমূহ

★ সাতক্ষীরা ১ ( জাতীয় সংসদের ১০৫নং আসন ) – কলারোয়া উপজেলা এবং তালা উপজেলা
★সাতক্ষীরা ২ ( জাতীয় সংসদের ১০৬নং আসন )- সাতক্ষীরা সদর উপজেলা
★সাতক্ষীরা ৩ ( জাতীয় সংসদের ১০৭নং আসন ) – আশাশুনি উপজেলা, দেবহাটা উপজেলা এবং কালিগঞ্জ উপজেলার কিছু অংশ (চাম্পাফুল ইউনিয়ন, ভাড়াশিমলা ইউনিয়ন, তারালী ইউনিয়ন, নলতা ইউনিয়ন)
★সাতক্ষীরা ৪ ( জাতীয় সংসদের ১০৮নং আসন )- শ্যামনগর উপজেলা, কালিগঞ্জ উপজেলা ( চাম্পাফুল ইউনিয়ন, ভাড়াশিমলা ইউনিয়ন, তারালী ইউনিয়ন, নলতা ইউনিয়ন ব্যতীত)

★ প্রত্নতাত্ত্বিক স্থাপনা

প্রত্নতাত্ত্বিক স্থাপনার বিচারে সাতক্ষীরার স্থান যথেষ্ট প্রসিদ্ধ। প্রধান স্থাপনা সমূহ :

-প্রবাজপুর শাহী মসজিদ
-তেতুলিয়া জামে মসজিদ
-ইশ্বরীপুর হাম্মামখানা
-জাহাজ ঘাটা হাম্মামখানা ও তৎসংলগ্ন -প্রত্নতাত্ত্বিক ধ্বংসাবশেষ
-ঝুঁড়িঝাড়া ঢিবি
-দরবার স্তম্ভ
-গোবিন্দ দেবের মন্দির ঢিবি
-যীশুর র্গীজা (শ্যামনগর)
-যশোরেশ্বরী মন্দির
-শ্যাম সুন্দর মন্দির
-কোঠাবাড়ির থান
-ছয়ঘরিয়া জোড়াশিব মন্দির
-অন্নপূর্ণা মন্দির
-দ্বাদশ শিব মন্দির
-জমিদার বাড়ি জামে মসজিদ
-নবরত্ন ডেমরাইল, ধলবাড়িয়া ইউনিয়ন -কালিগঞ্জ উপজেলা

★ চিত্তাকর্ষক ও দর্শনীয় স্থান

★ সুন্দরবন;
-মান্দারবাড়ী সমুদ্র সৈকত – শ্যামনগর;
-জমিদার বাড়ি ও যশোরেশ্বরী মন্দির – শ্যামনগর;
-নলতা রওজা শরীফ – কালীগঞ্জ;
-উপকূলীয় উপ-সুন্দরবন; কালিগঞ্জ -উপজেলা ধলবাড়িয়া ইউনিয়ন বর্ডার গার্ড -বাংলাদেশ, সীমান্ত ফাঁড়ি বাঁশঝাড়িয়া
দৃষ্টিনন্দন – গাবুরা, শ্যামনগর
-নীলকুঠি – দেবহাটা থানা;
– মাইচম্পার দরগা;
-লাবসা – সাতক্ষীরা;
-জাহাজমারী বিল (এবি পার্ক) – কলারোয়া;
-বৌদ্ধ মঠ – কলারোয়া;
-তেঁতুলিয়া মসজিদ – তালা;
-মোজাফফর গার্ডেন;
-বনলতা বাগান ও মিনি পিকনিক স্পট – -কালিগঞ্জ,সাতক্ষীরা;
-আব্বাস গার্ডেন;
-শ্যামনগর জমিদার বাড়ি (জমিদার -হরিচরণের বাড়ি)- শ্যামনগর;
-রেজওয়ান খানের জমিদার বাড়ি
-দেবহাটা জমিদার বাড়ি
-জাহাজঘাটা-ভুরুলিয়া, শ্যামনগর;
-মাটির টালি তৈরির কারখানা – কলারোয়া, সাতক্ষীরা;
-বনবিবির বটগাছ- দেবহাটা, সাতক্ষীরা;
-কলাগাছি, সুন্দরবন;
-আকাশনীলা ইকো ট্যুরিজম সেন্টার; মুন্সীগঞ্জ, শ্যামনগর;
-ভোমরা স্থল বন্দর, সাতক্ষীরা;
-শ্যামনগর উপজেলার ঐতিহাসিক -গোপালপুর স্মৃতিসৌধ;
-রেডিও নলতা- নলতা, কালীগঞ্জ, সাতক্ষীরা
-শহীদ আব্দুর রাজ্জাক পার্ক,সাতক্ষীরা সদর,সাতক্ষীরা
-কেওড়া পার্ক,আশাশুনি,সাতক্ষীরা

Facebook Comments Box
এই জাতীয় আরও খবর