বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ০১:২০ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
কিশোরগঞ্জে সার পাচারের ঘটনায় ডিলারের নামে মামলা মুমূর্ষুদের বাঁচাতে প্রাণ, আসুন করি রক্তদান” নড়াইলে বাঐসোনা ইউনিয়নে দু গ্রুপের সংঘর্ষ-গুলিবিদ্ধ ২ আহত ৪ জন ৮টি বাড়িঘর ভাংচুর। দেওয়ানগঞ্জে যমুনার পার থেকে ৯০ বোতল ভারতীয় মদ উদ্ধার,গ্রেফতার ১ আশাশুনিতে সমৃদ্ধি ও প্রবীণ কর্মসূচির ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত কলাপাড়ায় ওসির অপসারনের দাবিতে ঝাড়ু মিছিল ও বিক্ষোভ সমাবেশ কিশোরগঞ্জে জমিসহ ৫০টি ঘর পাচ্ছেন গৃহ ও ভূমিহীনরা। ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ঝালকাঠি জেলা কাঠালিয়া উপজেলায় বিজয়ী হলেন যাহারা নড়াইল জেলা পুলিশ লাইনস্ এর নবনির্মিত গান ক্লিয়ারিং পয়েন্টের নামফলক উন্মোচন হাটে নয়,ক্রেতার ভিড় খামারে । *ছোট ও মাঝারি গরুর চাহিদা বেশি কাঙ্খিত দামে মিলছে না পশু*

চার উপজেলায় কে কত ভোট পেলেন।

  • আপডেট সময় : শুক্রবার, ৩১ মে, ২০২৪
  • ২৮ বার পঠিত

৩১/০৫/২০২৪

বিজয় কর রতন, কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি:- চার উপজেলায় ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের তৃতীয় ধাপে কিশোরগঞ্জ জেলায় বুধবার (২৯ মে) চারটি উপজেলায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপজেলাগুলো হলো মিঠামইন, ইটনা, তাড়াইল ও করিমগঞ্জ। এর মধ্যে মিঠামইন উপজেলায় টানা দ্বিতীয়বারের মতো চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন সাবেক রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের ছোট বোন আলহাজ্ব আছিয়া আলম। তিনি ১০ হাজার ৫ ভোটের ব্যবধানে নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বীকে পরাজিত করে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। কেন্দ্র থেকে পাওয়া ফল অনুযায়ী, মোটর সাইকেল প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করে আলহাজ্ব আছিয়া আলম পেয়েছেন ২৩ হাজার ৫৬৯ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বোরহান উদ্দিন চৌধুরী বুলবুল (আনারস) পেয়েছেন ১৩ হাজার ৫৬৪ ভোট। এছাড়া ঘোড়া প্রতীকের প্রার্থী মো. শাহজাহান মিয়া পেয়েছেন ৮ হাজার ৭০৫ ভোট। হাওরের প্রথম নারী হিসেবে আলহাজ্ব আছিয়া আলম ২০১৯ সালের মার্চে অনুষ্ঠিত পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মিঠামইন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন। এদিকে হেভিওয়েট প্রার্থীকে হারিয়ে টানা দ্বি তীয়বারের মতো তাড়াইল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন জাতীয় পার্টিমনোনীত প্রার্থী মো. জহিরুল ইসলাম ভূইয়া শাহিন (লাঙ্গল)। তিনি ৭ হাজার ৯৪ ভোটের ব্যবধানে নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বীকে পরাজিত করে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। কেন্দ্র থেকে পাওয়া ফল অনুযায়ী, লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করে মো. জহিরুল ইসলাম ভূইয়া শাহিন পেয়েছেন ৩৯ হাজার ৭২৯ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী গিয়াস উদ্দিন লাকী (মোটর সাইকেল) পেয়েছেন ৩২ হাজার ৬৩৫ ভোট। ২০১৯ সালের ২৪ মার্চঅনুষ্ঠিত পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে প্রথমবারের মতো তাড়াইল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন মো. জহিরুল ইসলাম ভূইয়া শাহিন। ওই নির্বাচনে তিনি আওয়ামী লীগ প্রার্থী ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব মো. আজিজুল হক ভূঞা মোতাহারকে পরাজিত করে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নির্বাচন হয়েছিলেন। এবারের নির্বাচনে তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী গিয়াস উদ্দিন লাকী উপজেলা আওয়ামী লীগে র সাধারণ সম্পাদক। ফলে দুটি নির্বাচনে তিনি প্রথমে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতিকে ও এবার সাধারণ সম্পাদককে পরাজিত করে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। মো. জহিরুল ইসলাম ভূইয়া শাহিন তাড়াইল উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান জাতীয় পার্টির নেতা মরহুম কামাল উদ্দিন ভূঁইয়া কাঞ্চনের ছেলে। এদিকে করিমগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে প্রথমবারের মতো চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন এডভোকেট মোজাম্মেল হক মাখন (হেলিকপ্টার)। নির্বাচনে তিনি মাত্র ১ হাজার ২৭৬ ভোটের ব্যবধানে নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বীকে পরাজিত করে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। কেন্দ্র থেকে পাওয়া ফল অনুযায়ী, হেলিকপ্টা র প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করে এডভোকেট মোজাম্মেল হক মাখন পেয়েছেন ২৭ হাজার ৯২৪ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী শফিউল আলম জনি (দোয়াত কলম) পেয়েছেন ২৬ হাজার ৫৪৮ ভোট। এ উপজেলায় জাতীয় পার্টির প্রার্থী আমজাদ হোসেন খান দিদার (লাঙ্গল) পেয়েছেন ১৫ হাজার ৩৭১ ভোট। এছাড়া কাপ পিরিচ প্রতীকের প্রার্থী ফজলুর রহমান রাজুপেয়েছেন ১১ হাজার ২৫৬ ভোট। করিমগঞ্জ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে মোট ৮জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। এদিকে জেলার ইটনা উপজেলা পরিষদ নির্বা চনে চেয়ারম্যান পদে জয়ের হ্যাটট্রিক করেছেন চৌধুরী কামরুল হাসান। কাপ পিরিচ প্রতীয় নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে বিজয়ী হয়েছেন তিনি। এ নিয়ে তিনি টানা তিনবার ইটনা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলেন। কেন্দ্র থেকে পাওয়া ফল অনুযায়ী, নির্বাচনে চৌধুরী কামরুল হাসান ১৮ হাজার ২৭৪ ভো টের ব্যবধানে নিকটতম প্রতিদ্বন্দীকে পরাজিত করে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। কাপ পিরিচ প্রতীকে তিনি পেয়েছেন ৩৫ হাজার ৪৬৪ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদন্দ্বী এডভোকেট আবুল কাউছার খান মিলকী (মোটর সাইকেল) পেয়েছেন ১৭ হাজার ১৯০ ভোট। এছাড়া এডভোকেট খলিলুর রহমান (আনারস) পেয়েছেন ১২ হাজার ৫২৩ ভোট। ইটনা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে এই তিনজনসহ মোট পাঁচজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দীতা করেন।

বার্তা প্রেরক
বিজয় কর রতন
দৈনিক সমকাল
মিঠামইন কিশোরগঞ্জ
মোবাইল:-০১৭২৪৩৬২৭৪৪

Facebook Comments Box
এই জাতীয় আরও খবর